মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২

|

আশ্বিন ১৮ ১৪২৯

Advertisement
Narayanganj Post :: নারায়ণগঞ্জ পোস্ট

রমজানে ব্যস্ত সময় পার করছেন মুড়ি কারখানার শ্রমিকরা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

প্রকাশিত: ১৯:১২, ৮ এপ্রিল ২০২২

রমজানে ব্যস্ত সময় পার করছেন মুড়ি কারখানার শ্রমিকরা

মুড়ি কারখানা

পবিত্র মাহে রমজান মাস এলেই বেড়ে যায় মুড়ি বেচাকেনা। ইফতারে ঝালমুড়ি না হলে চলে না কারোই। স্বাভাবিকভাবে এর ফলে এই মাসে মুড়ি উৎপাদনও তুলনামূলক বৃদ্ধি পায়।

বর্তমানে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে মুড়ি কারখানাগুলোর শ্রমিকরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। দিনরাত ২৪ ঘন্টা চলছে মুড়ি উৎপাদন।

বুধবার (৬ এপ্রিল) বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জের সুমিলপাড়া, মিজমিজি,মৌচাক, আদমজী এলাকার বিভিন্ন মুড়ি কারখানাগুলোতে   সরেজমিনে গিয়ে এমনই চিত্র চোখে পড়ে।

এসব মুড়ি কারখানা মালিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়,নারায়ণগঞ্জ জেলার চাহিদা পূরণ করে প্রতিদিন এখান থেকে বরিশাল, চাঁদপুর, ফরিদপুরসহ দেশের  বিভিন্ন অঞ্চলে শত শত মণ মুড়ি সরবরাহ করা হয়। তারা জানান, রমযানের  বাড়তি চাহিদা এবং কিছু বেশি আয়ের জন্য ২৪ ঘন্টাই চলে মুড়ি উৎপাদন।

মিলন হোসেন নামে মুড়ি কারখানার এক শ্রমিক জানান,বছরের অন্য সময়ের  তুলনায় রমজান এলে আমাদের ব্যস্ততা বেড়ে যায়। রমজান মাস ছাড়া অন্যান্য সময় আমরা প্রতিদিন ৩৫ থেকে ৪০ মণ মুড়ি উৎপাদন করে থাকি। আবার কোনো কোনো দিন ২৫ থেকে ৩০ মণ। আর রমজান মাস এলে আমরা ৭০ থেকে ৮০ মণ মুড়ি উৎপাদন করে থাকি।

মেসার্স মডার্ন ফুড প্রোডাক্ট নামে একটি মুড়ি কারখানার স্বত্বাধিকার মোঃ হামিদুল হক। ২০ বছর ধরে তিনি এ পেশায় জড়িত আছেন। তিনি বলেন, আগের রমজানগুলোতে এক মাস পূর্বে মুড়ির চাহিদা বাড়লেও এবারের রমজান মাসে মাত্র ৩ দিন আগে থেকে আমাদের চাহিদা বৃদ্ধি পায়। অন্যান্য সময় আমার কারখানায় শ্রমিক ৩-৪ জন কাজ করলেও রমজান মাসে ৮- ৯ জন শ্রমিকের প্রয়োজন হয়।

তিনি আরো বলেন, আমাদের এখানকার  মুড়িতে কোনো ধরনের রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করা হয় না। এজন্য এখানকার মুড়িগুলো স্বাস্থ্যসম্মত এবং সুস্বাদু।