শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

|

আশ্বিন ১৪ ১৪২৯

Advertisement
Narayanganj Post :: নারায়ণগঞ্জ পোস্ট

সিদ্ধিরগঞ্জে কাউন্সিলর মতির পাঁচ অনুসারী গ্রেফতার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

প্রকাশিত: ১৯:৩৪, ২৪ আগস্ট ২০২২

সিদ্ধিরগঞ্জে কাউন্সিলর মতির পাঁচ অনুসারী গ্রেফতার

ফাইল ছবি

সিদ্ধিরগঞ্জে পুলিশের দায়ের করা মামলায় ওয়ারেন্টভুক্ত নাসিক কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতির পাঁচ অনুসারীকে গ্রেফতার করেছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ।

এসময় গ্রেফতারকৃত আসামীদের ছবি সংগ্রহ করতে গেলে সাংবাদিকদের বাধা দেন মতির আরেক ঘনিষ্ট সহযোগী আশরাফ উদ্দিন ওরফে আশরাফসহ বেশ কয়েকজন।

গত মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) রাতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক জয়নুল আবেদীনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম সিদ্ধিরগঞ্জের এসো মন্ডলপাড়া এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করেন।

বুধবার দুপুরে মুঠোফোনে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান পিপিএম বার।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- এসো বার্মাস্ট্যান্ড এলাকার মৃত: সাইজুদ্দিনের ছেলে মো: ফারুক হোসেন (৪০), মো: সিদ্দিক ভুইঁয়ার ছেলে মো: ইয়ার হোসেন ভুঁইয়া (৫০), মৃত: আমির আলী মন্ডলের ছেলে মো: মতিউর রহমান মন্ডল (৬৫), হোসেন সরদারের ছেলে মো: সিব্বির হোসেন (৪২) ও মৃত: আ: মান্নানের ছেলে মো: জসিম উদ্দিন (৩০)।

সূত্রে জানা যায়, গত বছরের (২০২১ সাল) পুলিশের দায়ের করা একটি মামলায় তাদের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি থাকায় তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সরকারি কাজে বাধা প্রদানের ঘটনায় গত বছর পুলিশ বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে মামলা (মামলা নং-১৪) দায়ের করেন। উক্ত মামলায় ওয়ারেন্ট থাকায় তাদেরকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

এদিকে নাসিক ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতির পাঁচ অনুসারীকে গ্রেফতারের পর থেকেই মতির আরেক ঘনিষ্ট সহযোগী আশরাফ উদ্দিন ওরফে আশরাফকে থানায় দৌড়ঝাঁপ করতে দেখা যায়। এমনকি গ্রেফতারকৃতদের ছবি সংগ্রহ করতে গেলে সাংবাদিকদের বাধা দেন আশরাফসহ তার বেশ কয়েকজন সহযোগী। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশের একজন কর্মকর্তা জানান, আসামীদের গ্রেফতারের পর থেকেই তিনি (আশরাফ) তদবির করতে থানায় চলে আসেন। তিনি নিজেকে একটি পত্রিকার প্রকাশক দাবী করেন। পুলিশের ওই সদস্য আরও জানান, একজন পত্রিকার প্রকাশক যদি অপরাধীদের পক্ষে থানায় এসে তদবির করেন তাহলে সমাজে অপরাধীদের সংখ্যা দিনদিন বৃদ্ধি পাবে। 

এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান পিপিএম বার বলেন, গ্রেফতার সকলেই পুলিশের দায়ের করা মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী। গ্রেফতারের পর বুধবার দুপুরে তাদেরকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। তবে তদবিরের বিষয়টি জানতে চাইলে ওসি বলেন, অপরাধীদের পক্ষ হয়ে যে তদবির করতে আসবে তাকেও আটক করা হবে। আমাদের কাছে অপরাধীদের কোন স্থান নেই। অপরাধী যেই হোক তাকে আইনের আওতায় আনা হবে।