শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

|

আশ্বিন ১৪ ১৪২৯

Advertisement
Narayanganj Post :: নারায়ণগঞ্জ পোস্ট

আ’লীগের সম্মেলনে বিশৃঙ্খলা, কর্মীদের ‘শুয়োরের বাচ্চা’ গালি দিলেন নেতা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

প্রকাশিত: ০০:৫১, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২

আ’লীগের সম্মেলনে বিশৃঙ্খলা, কর্মীদের ‘শুয়োরের বাচ্চা’ গালি দিলেন নেতা

সংগৃহীত

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের লালবাগ থানা ইউনিটের সম্মেলনে আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের উপস্থিতিতেই বাকবিতণ্ডা ও হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের চার পক্ষ।  

এসময় বিশৃঙ্খলা থামাতে গিয়ে মাইক হাতে নিয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ হুমায়ুন কবির ‘শুয়োরের বাচ্চা’ বলে গালি দেন বিশৃঙ্খলাকারীদের।

মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর লালবাগের নবাবগঞ্জ পার্কে লালবাগ থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সম্মেলনের নেতাকর্মীদের মধ্যে মোট পাঁচ দফায় হাতাহাতি মারামারি হয়েছে। মাইকে বারবার নির্দেশ দেওয়া হলেও থামেনি বিশৃঙ্খলা।  

রাজধানীর লালবাগের এ থানাতেই বাড়ি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবিরের।

সম্মেলনে নেতাদের নামে স্লোগান দেওয়া নিয়ে হট্টগোল ও বাকবিণ্ডতা শুরু হয়।  

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন এবং ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির, কাউন্সিলর হাসিবুর রহমান মানিক ও হাজী সেলিমের ছেলে সোলায়মান সেলিম সমর্থকদের মধ্যে দফায় দফায় হাতাহাতি, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে।  

এসময় বিশৃঙ্খলা থামাতে গিয়ে মাইক হাতে নিয়ে হুমায়ুন কবির বলেন, স্লোগান বন্ধ করো। স্লোগান বন্ধ কর 'শুয়োরের বাচ্চারা'।

সোলায়মান সেলিমের কর্মীরা মানিকের সাথে ওই ঘটনার পর সবাই ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সদস্য এবং ২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আনিসুর রহমান আনিস বিরোধী স্লোগান দেন। আনিস এ সময় স্টেজে ছিলেন।  

কাউন্সিলর আনিসুর মাইকে সোলায়মান সেলিমকে উদ্দেশ্য করে বলেন, সোলায়মান সেলিম মাস্তানি করবেন না। আপনার চেয়ে বড় মাস্তান মঞ্চে আছে।  

স্লোগানধারী নেতাদের উদ্দেশ্যে  বলেন, সিসিটিভির ফুটেজ দেখে সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কাউকে ঘরে থাকতে দেওয়া হবে না। ঘুমাতে দেওয়া হবে না।

পরে কেন্দ্রীয় নেতাদের বক্তব্য শুরু হলে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক বক্তব্য দেয়ার মধ্যেই সম্মেলনের মাঠে আবারও মারামারিতে জড়িয়ে পড়েন হাসিবুর রহমান মানিক ও হুমায়ুন কবির সমর্থকরা।  

এ সময় আব্দুর রাজ্জাক মারামারি থামানোর জন্য নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, মারামারি থামানোর জন্য আহ্বান করছি। বিশৃঙ্খলা করবেন না, বিশৃঙ্খলা করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। থামুন আপনারা। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আপনাদের মাঝে এসেছে, এর গুরুত্ব উপলব্ধি করুন আপনারা।  

এসময় আ'লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, লাফালাফি, বাড়াবাড়ি করবেন না। নির্বাচনের ১৪ মাস বাকি অথচ শোডাউন দিয়ে শক্তি প্রদর্শন শুরু করেছেন। আপনারা কেউ এমপি হতে পারবেন না, নেতা হতে পারবেন না।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির বলেন, আমরা একটা ভালো সম্মেলন করি এটা জালাল(ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন) সাহেবও চান না, হাজী সেলিমও চায় না। তারা শান্তিপূর্ণ সম্মেলন চায় না।  

'হাজী সেলিমের ছেলে প্রস্তাব পাঠায় মঞ্চে বক্তব্য দিতে সুযোগ দেবার জন্যে। কিন্তু মহানগরের নেতারাই তো সুযোগ পায়নি সেখানেও (হাজী সেলিমের পুত্র) কোন পজিশনেই নেই। এরমধ্যে বলতে বলা হল, হাজী সেলিমকে মিথ্যা মামলা থেকে মুক্তি দেওয়া হোক। কিন্তু এগুলো আমরা কেনো বলবো'।

গালি প্রসঙ্গে এসময় হুমায়ুন কবির বলেন, 'মানুষের ধৈর্য্যেরও তো সীমা থাকে'।