শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

|

আশ্বিন ১৪ ১৪২৯

Advertisement
Narayanganj Post :: নারায়ণগঞ্জ পোস্ট

চাঁদা না দিলে মার্কেট মালিককে হত্যা করে লাশ শীতলক্ষ্যায় নিক্ষেপের হুমকী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

প্রকাশিত: ০০:২৪, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

আপডেট: ০০:৪৭, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

চাঁদা না দিলে মার্কেট মালিককে হত্যা করে লাশ শীতলক্ষ্যায় নিক্ষেপের হুমকী

প্রতীকী ছবি

নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জের কদমতলী উত্তরপাড়া গ্যাস লাইন এলাকায় একটি মার্কেটে ১৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগ উঠেছে। দাবিকৃত চাঁদা না দিলে মার্কেটের মালিককে হত্যা করে তার লাশ কাঁচপুর ব্রীজ থেকে শীতলক্ষ্যা নদীতে নিক্ষেপ করা হবে বলে হুমকী দিয়েছে সন্ত্রাসী সজু বাহিনী। দাবিকৃত চাঁদা না দেয়ায় একাধিকবার মার্কেটের মালিক ও ভাড়াটিয়াদের মারধর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষযে প্রতিকার চেয়ে গতকাল বুধবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ  সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী আমিনুল হক টুটুল। 

পুলিশ সুপারের কাছে দেয়া লিখিত অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জের সাইলো রোড এলাকার সিরাজুল হকের পুত্র আমিনুল হক টুটুল লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন, সিদ্ধিরগঞ্জের কদমতলী উত্তরপাড়া গ্যাস লাইন এলাকায় তার মালিকানাধীন একটি মার্কেট ও টিনশেড বাড়ি ভাড়া দেয়া হয়েছে। ওই এলাকার বাসিন্দা মৃত হুমায়ন কবিরের পুত্র তানজীম কবির সজুর প্রায় ২০২৫র জন লোক আমিনুল হক টুটুলের মালিকানাধীন মার্কেটের দোকানীদের কাছ থেকে জোরপূর্বক ক্যাশ থেকে টাকা লুটে নিচ্ছে। দোকানীদের হুমকী দিচ্ছে এখানে দোকান করতে হলে প্রতি মাসে তাদেরকে চাঁদা দিতে হবে। এ নিয়ে বেশ কয়েকবার দোকানীদের মারধরও করেছে। উপরেল্লিখিত সন্ত্রাসীরা মার্কেটের দোকানীদের কাছ থেকে ১৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেছে। সন্ত্রাসী চাঁদাবাজরা বলেছে, মার্কেটের দোকান চালাতে হলে তাদেরকে ১৫ লাখ টাকা চাঁদা দিতে হবে। এর আগেও উপরেল্লিখিত সন্ত্রাসীরা মার্কেটের মালিকের কাছ থেকে ২ লাখ টাকা চাঁদা নিয়েছে। দাবিকৃত চাঁদা না দেয়ায়  গত ২৮ জুলাই আমিনুল হক টুটুলের ব্যবহৃত একটি প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্রো গ ২৯-৪৮৫৮) ভাংচুর করে আনুমানিক ১ লাখ টাকার ক্ষতিসাধন করে। দাবিকৃত চাঁদা না দিলে ৭ দিনের মধ্যে মার্কেটের মালিককে অপহরণ করে তাকে হত্যা করে লাশ কাঁচপুর ব্রীজ থেকে শীতলক্ষ্যা নদীতে ফেলে দিবে বলে হুমকী দিচ্ছে সন্ত্রাসী সজু বাহিনী। এতে করে মার্কেটের মালিক চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে উল্লেখ করেন।

অভিযোগ দায়েরের কথা জানিয়ে বাদী মার্কেট মালিক  এস এম টুটুল জানান, কয়েক দিন আগেও আমার এক মার্কেটের দোকানী থেকে কয়েক দিন পূর্বে মালামাল নিয়ে গেছে তানজিম সজীবের লোকজন । টাকা না দিয়েই চলে গেছে। এ নিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসিকে থানায় উপস্থিত হয়ে বিষয়টি জানিয়ে কোন প্রতিকার পাইনি।

এ বিষয়ে মুঠোফোনে বিবাদী তানজীম সজীব মুঠোফোনে বুধবার বিকালে জানান, মার্কেট ও জায়গাটি হিন্দু সম্পত্তি জাল দলিলের মাধ্যমে বাদী টুটুলের বংশধর দখলে রেখেছে।  এ নিয়ে আদালতে মামলা চলছে। এটা বের হবে এটা জাল দলিল।  চাঁদা দাবি বা দোকানীর থেকে টাকা নিয়ে যাওয়া বিষয়টি হলো- আমার কাকা জামা কাপড় বাকী নিয়েছে ৮ হাজার টাকা। সেই টাকা আমি পরিশোধ করব জানিয়েছি। এটি কি চাঁদাবাজি এটি একটি দোকান বাকী।

গাড়ী ভাংচুরের বিষয়ে তিনি জানান, জায়গায় সাইনবোর্ড লাগানো নিয়ে ঝামেলা হয়েছিল। সেই সময়ও টুটুল আমিসহ সাত জনের নামে ছিনতাইয়ের অভিযোগ এনে পুলিশ সুপার অফিসে লিখিত অভিযোগ দিয়েছিল। এগুলো সব মিথ্যা। 

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল জানান, প্রতিদিনি বহু লিখিত অভিযোগ আমাদের কাছে আসে। হাতে পেল অভিযোগটি তদন্ত পাঠাব ।