বুধবার, ২২ মে ২০২৪

|

জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪৩১

Advertisement
Narayanganj Post :: নারায়ণগঞ্জ পোস্ট

হাজার টাকায় মিলছে আধা কেজি ওজনের ইলিশ!

রাত পোহালেই বৈশাখ, না.গঞ্জে ইলিশের বাজার যেমন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

প্রকাশিত: ২২:৩১, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

আপডেট: ২২:৪৭, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

রাত পোহালেই বৈশাখ, না.গঞ্জে ইলিশের বাজার যেমন

ফাইল ছবি

রাত পোহালেই রোববার (১৪ এপ্রিল) পহেলা বৈশাখ। পুরাতন বাংলা বছরকে বিদায় দিয়ে নতুন বছরকে বরণে নানা অনুষ্ঠান আয়োজন করেন বাঙালিরা। মঙ্গল শোভাযাত্রা থেকে শুরু করে পান্তা-ইলিশ শোভা পায় বাঙালির পাতে। আর স্বভাবতই ঐতিহ্যবাহী এই উৎসবকে কেন্দ্র করে মাছের বাজারে ইলিশের কদর থাকে তুঙ্গে। নতুন বছরের সকালে একও টুকরো ইলিশের সঙ্গে পান্তা ভাত, আর পেয়াজ-কাঁচামরিচ, এই না হলে যেন নববর্ষ উদযাপনই হয় না!

নারায়ণগঞ্জে এবারও পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে যথারীতি বাজারে ইলিশের চাহিদা রয়েছে। তবে সে তুলনায় সরবরাহ কম হওয়ায় বেশি দামেই ইলিশ মাছ কিনতে হচ্ছে ক্রেতাদের।

মাছ ব্যবসায়ীরা দাবি করছেন, অন্যান্য সময়ের চাইতে এখন ইলিশ ধরা পড়ছে কম। এজন্য বাজারে সরবরাহ কম, ফলে দাম বেশি। সাধারণত সরবরাহ বেশি হলেই দাম কম হয়। কিন্তু এবার পাইকারি বাজারেও ভিন্ন চিত্র।

বড় আকারের ইলিশের দেখা খুব একটা মিলছে না বললেই চলে। শহরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, এক কেজির নিচে, ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে, সঙ্গে পাওয়া যাচ্ছে জাটকা।

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা প্রতিকেজি জাটকা বিক্রি করছেন সাড়ে ৬ শ' থেকে ৭ শ' টাকায়। ৭০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ দাম ১২০০ টাকা, ৮০০ গ্রাম ইলিশের দাম ১৩৫০ থেকে দেড় হাজার টাকার মতো। ১ হাজার টাকায় পাওয়া যাচ্ছে ৫৫০ গ্রাম ওজনের ইলিশ।

ইলিশ মাছ কিনতে যে কয়জন ক্রেতা এসেছেন, তারা বলছেন, ঈদের ছুটির সঙ্গে এবার পহেলা বৈশাখের ছুটি একসঙ্গে হওয়ায় অনেক মানুষ জেলার বাইরে চলে গেছেন। নারায়ণগঞ্জ শহর এখন অনেকটাই ফাঁকা। ফলে অন্যান্যবারের পহেলা বৈশাখের মতো ইলিশ বেচাবিক্রির ধুম সেভাবে চোখে পড়ছে না। নারায়ণগঞ্জে যারা আছেন, তাদের কাছে ইলিশের চাহিদা থাকলেও বাজারের পরিস্থিতি তেমন নয়।

বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, কাঁচাবাজারগুলোতে ক্রেতা কম থাকায় বেশিরভাগ দোকানি অলস সময় পার করছেন। ঈদে শাকসবজির দাম বাড়েনি। অন্যদিকে ব্রয়লার মুরগির দাম কেজিপ্রতি ১০ টাকা বেড়েছে। সোনালী বা লেয়ার মুরগির দামও বেড়েছে ২০-৩০ টাকা। এছাড়া বেশিরভাগ দোকানে গরুর মাংসের দাম ৮০০ টাকা, আর খাসির মাংসের দাম ১২০০ থেকে ১৩০০ টাকা। সার্বিকভাবে বাজার স্বাভাবিকই আছে। তবে ঈদের ছুটির কারণে চাহিদা কম, ফলে সরবরাহও কম। একই প্রভাব পড়েছে ইলিশের বাজারে, যার ফলে বড় আকারের ইলিশেরও দেখা মিলছে না।