শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

|

মাঘ ১৯ ১৪২৯

Advertisement
Narayanganj Post :: নারায়ণগঞ্জ পোস্ট

গ্যাস–বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ক্ষমতা নিল সরকার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

প্রকাশিত: ০১:৩১, ২ ডিসেম্বর ২০২২

গ্যাস–বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ক্ষমতা নিল সরকার

প্রতীকী ছবি

এতদিন দেশের গ্যাস-বিদ্যুতের পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে দর বাড়ানো-কমানোর একক সিদ্ধান্ত নিত বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। কিন্তু বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন অধ্যাদেশ ২০২২ সংশোধনের কারণে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা পেল সরকার।

বৃহস্পতিবার (১ জানুয়ারি) বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (সংশোধন), অধ্যাদেশ, ২০২২ গেজেট আকারে প্রকাশের মাধ্যমে জারি করা হয়। এর ফলে গ্যাস-বিদ্যুতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির ক্ষমতার লাগাম টেনে ধরা হলো। বিশেষ ক্ষেত্রে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বাড়ানো-কমানো বা সমন্বয়ের কাজটি এখন থেকে সরকার করবে।

এর আগে গত ২৮ নভেম্বর অধ্যাদেশের খসড়াটি মন্ত্রিসভায় অনুমোদন দেওয়া হয়। বর্তমানে জাতীয় সংসদের অধিবেশন না থাকায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এটি অধ্যাদেশ আকারে জারি করেছেন।

অধ্যাদেশের মূল সংশোধনে বলা হয়েছে, এই আইনের অন্যান্য বিধানে যা কিছু থাকুক না কেন, বিশেষ ক্ষেত্রে সরকার প্রজ্ঞাপন দিয়ে ভর্তুকি সমন্বয়ের জন্য জনস্বার্থে কৃষি, শিল্প, সার, ব্যবসা-বাণিজ্য ও গৃহস্থালি কাজের চাহিদা অনুযায়ী এনার্জির নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ নিশ্চিত করতে এসবের উৎপাদন, এনার্জি সঞ্চালন, মজুতকরণ, বিপণন, সরবরাহ, বিতরণ এবং ভোক্তা ট্যারিফ নির্ধারণ, পুনর্নির্ধারণ বা সমন্বয় করতে পারবে।

এতদিন গ্যাস ও বিদ্যুতের দর বাড়ানো বা কমানোর বিষয়টি গণ শুনানির মাধ্যমে বিইআরসি নির্ধারণ করতো। এখন বিদ্যুৎ ও গ্যাসের মূল্য নির্ধারণে কোনো ধরণের শুনানির প্রয়োজন হবে না। দাম বাড়ানো বা কমানো নিয়ন্ত্রণ হবে সরকারের অধীনে।

শোনা যাচ্ছে শিগগিরই গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হবে। গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়াতে ইতোমধ্যে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন ও বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলো। তবে আইন সংশোধনের ফলে এখন এ সিদ্ধান্তটি বিইআরসি নয়; ক্ষমতাবলে সরকারই নেবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ২১ নভেম্বর পাইকারি পর্যায়ে ১৯ দশমিক ৯২ শতাংশ বিদ্যুতের দাম বাড়ার সিদ্ধান্ত জানায় বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। সে সময় বিইআরসি চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল পাইকারি পর্যায়ে বিদ্যুতের দর বৃদ্ধির ঘোষণা দেন। আগে পাইকারি পর্যায়ে ইউনিট প্রতি বিদ্যুতের দর ছিল ৫ টাকা ১৭ পয়সা এখন যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ টাকা ২০ পয়সা। এই দফায় প্রতি ইউনিটে পাইকারি পর্যায়ে ইউনিট প্রতি বিদ্যুতের দাম বাড়ে ১ টাকা তিন পয়সা।