শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

|

মাঘ ১৯ ১৪২৯

Advertisement
Narayanganj Post :: নারায়ণগঞ্জ পোস্ট

সড়কে মেলা বসিয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগ পানি এনায়েতের বিরুদ্ধে!

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

প্রকাশিত: ২১:২০, ২৫ ডিসেম্বর ২০২২

সড়কে মেলা বসিয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগ পানি এনায়েতের বিরুদ্ধে!

সড়কে মেলা

নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের দেয়া সরকারি সাবমারসিবল পাম্প নিজ বাড়িতে স্থাপন করে সেই পাম্পের পানি বিক্রি করে এলাকায় এনায়েত হোসেনের পরিচিতি হয় পানি এনায়েত নামে। তিনি নিজেকে মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম লীগ নেতা হিসেবে পরিচয় দেন। এছাড়াও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াছিন মিয়ার নাম ভাঙিয়ে এলাকায় নানা অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে পানি এনায়েতের বিরুদ্ধে। এখন তিনি সরকারি পানি বিক্রির সঙ্গে নতুন চাঁদাবাজিতে নেমেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তা হলো সড়ক দখল করে সপ্তাহিক মেলা বসিয়ে হাজার হাজার টাকা চাঁদা তোলার অভিযোগ।

রবিবার (২৫ ডিসেম্বর) সরজমিনে সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি পাইনাদী পশ্চিম এলাকায় গিয়ে দেখা যায় খালপাড়ের সড়কে প্রায় দেড়শতাধিক ভ্রাম্যমাণ দোকানের মেলা বসেছে। যেখানে জামা-কাপড়, ঘরের জিনিসপত্র ও বাচ্চাদের খেলনাসহ হরেক রকমের মালামাল বিক্রি করা হচ্ছে। সরকারি সড়ক দখল করে সপ্তাহে প্রতি রবিবার বিকাল চারটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত এই মেলা বসে। মেলায় অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে সপ্তাহিক এই মেলার ভ্রাম্যমাণ দোকান প্রতি ১৫০ থেকে ১৮০ টাকা চাঁদা আদায় করেন পানি এনায়েত, এমনটা অভিযোগ উঠেছে। প্রায় দেড় শতাধিক ভ্রাম্যমাণ দোকানের এই মেলায় সপ্তাহে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার চাঁদা উত্তোলন করা হয় বলে জানান স্থানীয়রা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন দোকানদার বলেন, দোকানপ্রতি দেড়শ টাকা দেই। মাঝেমধ্যে টাকা ছাড়া দোকানের মালও দিতে হয়ে এখানে বসতে হলে। এছাড়া সন্ধ্যার পর দোকানদারি করলে বিদ্যুতের জন্য আলাদা টাকা।

এদিকে  টাকার বিনিময়ে বেশ কয়েকটি বাড়িতে জেলা পরিষদ থেকে দেয়া সরকারি পানি বিক্রি করা নিয়ে এনায়েতের নামে জাতীয় ও স্থানীয় একাধিক সংবাদ মাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। তবে এ নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেয়নি নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদ।

পানি এনায়েতের অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগের বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ ডিপিডিসির নির্বাহী প্রকৌশলী রাকিবুল ইসলামের সঙ্গে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায় নি।

এ দিকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মশিউর রহমান বলেন, সড়ক দখল করে মেলা বসিয়ে চাঁদা আদায় করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে এনায়েত হোসেন বলেন, আমি চাঁদাবাজি করি না। দোকানদাররা দোকান বসিয়ে মসজিদে ২০-৩০ টাকা করে দেয়। এখানে আমি কিছুই করিনা।