মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪

|

আষাঢ় ৩১ ১৪৩১

Advertisement
Narayanganj Post :: নারায়ণগঞ্জ পোস্ট

ফতুল্লায় বিষধর সাপ রাসেল ভাইপার আতঙ্ক!

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২০:০১, ২০ জুন ২০২৪

আপডেট: ২০:১৫, ২০ জুন ২০২৪

ফতুল্লায় বিষধর সাপ রাসেল ভাইপার আতঙ্ক!

বিষধর সাপ রাসেল ভাইপার

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় একটি ইটভাটায় প্রকাশ্যে দেখা গেছে বিষধর সাপ রাসেল ভাইপার, এমনটা দাবি স্থানীয়দের। 

যদিও স্থানীয়দের একাংশ বলছেন, এটি সত্য নয়।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সকালে ফতুল্লার বক্তাবলী ইউনিয়নের প্রসন্ননগর এলাকায় একটি ইটভাটায় এ সাপ দেখা যায় বলে স্থানীয়রা দাবি করে। পরে ইটভাটার শ্রমিকরা সাপটি পিটিয়ে মেরে ফেলে দেয় বলেও খবর ছড়ায়। 

তবে পরবর্তীতে এটি রাসেল ভাইপার কিনা সেটি নিশ্চিত করতে পারেননি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি বা দায়িত্বশীল কেউ। সাপ মারা বা দেখা যাওয়ার বিষয়টি জানেন না বলেও জানান অনেকে।

স্থানীয়দের সূত্রে জানা যায়, সকাল ১০ টার পর ইটভাটার শ্রমিকরা ইট সরবরাহ করার জন্য ভাটা ইট উঠানামানোর সময় সাপটি দেখতে পায়। এসময় সবার মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পরে কয়েকজন শ্রমিক সাহস করে এগিয়ে গিয়ে সাপটি পিটিয়ে মেরে ফেলে। পরে খবর ছড়িয়ে পড়ে এটি রাসেল ভাইপার সাপ ছিল।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে আশেপাশের এলাকাগুলোতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। 

স্থানীয়দের ধারণা, পাশের ধলেশ্বরী নদী থেকে সাপটি ইটভাটায় এসে থাকতে পারে। তবে সাপটি যে রাসেল ভাইপার তা কেউ শতভাগ নিশ্চিত করে বলতে পারেননি।

আবার অনেকের দাবি, কোন সাপই ইটভাটায় দেখা যায়নি বা পিটিয়ে মারার ঘটনা ঘটেনি।

এদিকে ঘটনাস্থল হিসেবে দাবি করা আলাউদ্দিন ইটভাটার আলাউদ্দিন ফকিরের ছেলে ইটভাটার মালিক দীন ইসলাম জানিয়েছেন, এরকম কোন ঘটনা ঘটেনি।

এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডা. মশিউর রহমান জানান, ফতুল্লায় সাপ নিয়ে এখনো এমন কিছু আমি শুনিনি। তবে এটি খুবই বিষধর সাপ। অবশ্যই-অবশ্যই এর ব্যাপারে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। আমাদের এখানে সাপের বিষের এন্টিভেনম আছে তবে এটি রাসেল ভাইপারের বিষের বিপরীতে দেরী হয়ে গেলে সব সময় কাজ করে এমনটা এখনো নিশ্চিত না। কেউ আক্রান্ত হলে খুব দ্রুত এন্টিভেনম দেয়া না হলে এটি কাজ নাও করতে পারে। তাই কেউ আক্রান্ত হলে ভুলেও হঠকারী কোন সিদ্ধান্ত নেয়া যাবেনা। বরং দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কিংবা যেখানে এন্টিভেনম আছে সেখানে যেতে হবে। নদী তীরবর্তী মানুষজনকে এ ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করতে উপদেশ দেয়া হচ্ছে।