বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

|

জ্যৈষ্ঠ ২৮ ১৪৩১

Advertisement
Narayanganj Post :: নারায়ণগঞ্জ পোস্ট

নারায়ণগঞ্জে কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

প্রকাশিত: ১১:৪১, ২৯ মে ২০২৪

নারায়ণগঞ্জে কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দি

ফাইল ছবি

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে রোববার রাত থেকে সোমবার রাত পর্যন্ত টানা বর্ষণে ডিএনডি বাঁধের ভেতরসহ নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন এলাকার রাস্তাঘাট তলিয়ে গেছে। কোথাও হাঁটু পানি আবার কোথাও  কোমর সমান। এতে কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে ডিএনডি বাঁধের ভেতরের মানুষ। কলকারখানার বিষাক্ত ক্যামিকেলযুক্ত ময়লা পানি বৃষ্টির পানির সঙ্গে মিশে একাকার হয়ে আছে। দুর্গন্ধযুক্ত এই পানি মাড়িয়ে নিরুপায় মানুষ যাতায়াত করছে। আবার যেখানে বেশি পানি ওই সব এলাকায় রিকশা, ভ্যান ও নৌকা দিয়ে গন্তব্যে যাচ্ছে পানিবন্দি মানুষ।

এদিকে শহরের প্রধান সড়ক বঙ্গবন্ধু সড়ক থেকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (বিকাল ৫টা) পানি সরেনি। অন্যদিকে শহরের বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় ব্যাপক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ডিএনডি বাঁধের ভেতর ফতুল্লার পাগলার নন্দলাপুর নয়ামাটি, শাহিমহল্লা, মুসলিমপাড়া, শহীদ নগর, দৌলতপুর, মুন্সিবাগ, আদর্শ নগর, নূরবাগ, পিলকুনী, ব্যাংক কলোনি, শিয়াচর, লালখা, রেলস্টেশন, ব্যাপারীপাড়া, খোঁজপাড়া, লালপুর, পৌষাপুকুর পাড়, টাগার পাড়সহ আশপাশের প্রায় বেশ কয়েকটি এলাকার রাস্তাঘাট টানা বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে। আর এতে করে ঘরবন্দি হয়ে পড়েছেন প্রায় কয়েক লাখ মানুষ।

সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা লালপুর পৌষাপুকুর এলাকা। এই এলাকার প্রতিটি অলিগলিতেই হাঁটু সমান বা তারও বেশি পানিতে তলিয়ে গেছে রাস্তাগুলো। অনেক বাসাবাড়িতেও প্রবেশ করেছে পানি। পৌষাপুকুর পাড় কবরস্থান সড়কের বাসিন্দা সামছুল জানান, বৃষ্টির পানি না সরতে পারায় রাস্তা ডুবে আছে। মানুষের চলাচলে খুবই কষ্ট হচ্ছে। রহিমা  খাতুন জানান, অনেকের বাসায় এখনো বৃষ্টির পানি আটকে আছে। রান্নাঘরেও পানি প্রবেশ করেছে। তাই বাধ্য হয়ে বৃষ্টিতে ভিজে পাশের বাড়ি থেকে রান্না করে নিয়ে এসেছি। এদিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ও শহরতলী এবং সিদ্ধিরগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায়ও শহরের অনেক এলাকার পানি সরেনি।